সংবাদ শিরোনাম :
«» ফ্রান্সে মহানবী (সা:) কে অবমাননা ও ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শন, গাজীপুরের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ «» মহানবী (সাঃ) কে অবমাননা ও ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শন করায় গাজীপুরে বিক্ষোভ «» তালাবদ্ধ অবস্থায় বাথরুম হতে রোগী উদ্ধার «» নবীনগরে আওয়ামীলীগ নেতার মুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত! «» কালিয়াকৈরে ভুয়া র‌্যাব সদস্যসহ আটক ২ «» কালিয়াকৈরে মাদ্রাসায় ছেলে শিশু ধর্ষণ, অভিযুক্ত শিক্ষক আটক «» আমরা সবাই নবীর সেনা, ভয় করি না বুলেট বোমা এমন স্লোগানে উত্তাল টঙ্গী «» বাফুফের সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় নূরুল ইসলাম নূরুকে টংগীতে গণসংবর্ধনা «» কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় মোঃ জাহাঙ্গীর আলমকে নুরুল ইসলাম নুরু’র শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন «» টঙ্গীতে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি প্রার্থীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও থানায় মিথ্যা মামলার অভিযোগ।

কালিয়াকৈরে বুদবুদ করে গ্যাস বের হচ্ছে সংস্কারের দাবী

মোঃমাইনুল সিকদার, কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে তিতাসের গ্যাস পাইপলাইনে রয়েছে অসংখ্য লিকেজ। এসব লিকেজের মাধ্যমে বিরামহীন ভাবে বুদবুদ আকারে বের হচ্ছে গ্যাস। রাস্তার পাশে এসব লিকেজের কারনে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। অপরদিকে রাষ্ট্রিয় সম্পদ গ্যাসের ব্যাপক অপচয় হচ্ছে। গ্যাস লাইনের এসব লিকেজের কারনে আতঙ্কে রয়েছে কালিয়াকৈরবাসী।

লিকেজ স্থান পরিদর্শন করে দেখা যায়, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহসড়কের পাশ দিয়ে স্থাপনকৃত উত্তরবঙ্গ অভিমুখী তিতাস গ্যাসের মূল সঞ্চালন পাইপে উপজেলার সফিপুর-মৌচাক এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহসড়কের ওপর বের হচ্ছে গ্যাস। এর ফলে মারাত্নক ঝুঁকিতে রয়েছে যানবাহন চালকরাসহ সাধারন পথচারী, দেখার যেন কেও নেই। এ ছাড়াও চান্দরা পল্লীবিদ্যুৎ, মৌচাক বাজার রোড, হরতকীতলা সীমান্ত ফিলিং স্টেশনের কাছে, চান্দরা আহসান নীট কম্পোজিট কারখানা, ডিভাইন টেক্সাটাইল লিঃ এর পাশে এবং চন্দ্রা ত্রি-মোড়ে নায়াগ্রা টেক্সটাইল সংলগ্নসহ অন্তত ৮/৯ টি স্থানে গ্যাস লাইনের পাইপে লিকেজ রয়েছে।

পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের হরিনহাটিসহ বিভিন্ন স্থানে প্রায় কয়েক কিলোমিটার এলাকা জোরে অসংখ্য লিকেজের মাধ্যমে দীর্ঘদিন যাবত গ্যাস বের হচ্ছে। গ্যাস পাইপ লাইনের লিকেজ দিয়ে গ্যাস বেরিয়ে যাচ্ছে অথচ উপজেলার কালিয়াকৈর, লতিফপুর, শ্রীফলতলী, শ্রীফলতলী, খালপাড় ও বড়ইতলী, সফিপুরসহ বিভিন্ন স্থানে বৈধ গ্রাহকরা তাদের বাসা-বাড়ীতে ঠিকমত গ্যাস পাচ্ছে না।

এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অবৈধ গ্যাস লাইনের সংযোগের বিভিন্ন স্থানে নিন্মমানের পাইপে রয়েছে অসংখ্য লিকেজ। এসব লিকেজ থেকে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে বিস্ফোরনের মত ভয়াবহ ঘটনা। প্রায় ৫/৬ বছর আগে এই অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া হয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর এলাকার রাখালিয়াচালা, মৌচাক, সরকার মার্কেট, মৌচাক কামরাঙ্গীরচালা, মৌচাক আইচ মার্কেট, চান্দরা বোর্ডমিল, বিশ্বাস পাড়া, হাবিবপুর, বাড়ইপাড়া, হিজলতলী, জিয়ারউদ্দিনের টেক এলাকায় প্রায় দশ সহস্রাধিক এর বাড়ীতে রয়েছে অবৈধ গ্যাস সংযোগ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই সব এলাকার অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারী কলোনীর মালিকরা জানান, প্রতি মাসে বাড়ী প্রতি তিতাস গ্যাস অফিসের কথা বলে গ্যাস বিলের নামে তিন শত টাকা করে আদায় করে থাকে একটি চক্র। দেখা গেছে প্রত্যেক বাড়ীতে রাইজার না দিয়ে একটি রাইজার থেকে একসাথে ১০ থেকে ১৫টি বাড়ীতে ৫০ থেকে ৬০টি চুলা জালানো হচ্ছে ঝুঁকি পূর্নভাবে। এ সব অবৈধ গ্যাস লাইন থেকে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের অগ্নিকান্ডের মত দূর্ঘটনা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় তিতাস গ্যাসের বৈধ কয়েকজন গ্রাহক জানান, আমাদের নির্ধারিত বৈধ গ্যাস লাইনের জন্য গ্যাসের যে পাইপ ব্যবহার করা হয়েছে সেই পাইপ থেকে অবৈধ গ্যাস লাইনের সংযোগ দেয়া হয়েছে। সংযোগ দেয়ার সময় তিতাস গ্যাস অফিসে জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহন করে নাই। এ সব অবৈধ গ্যাস সংযোগের কারনে আমরা আমাদের বৈধ লাইনে অনেক সময় গ্যাস পাই না। আর বাসায় গ্যাস না থাকার কারণে অধিকাংশ সময় বাহিরের হোটেল থেকে খাবার কিনে এনে খেতে হয়।

এ ছাড়াও সফিপুর, রতনপুর, মৌচাক এলাকায় বহুতল বাসা-বাড়ীতে ৫টি চুলা ব্যবহারের অনুমোদন থাকলেও অবৈধ ভাবে ব্যবহার করছেন ১০ থেকে ১৫টি চুলা। এ ভাবে অবৈধ গ্যাস সংযোগ চলতে থাকলে সরকার লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে অপরদিকে বাসা-বাড়ীসহ কলকারখানা গুলোতে দেখা দিচ্ছে চরম গ্যাস সংকট। এই অবৈধ গ্যাস সংযোগের সাথে তিতাস গ্যাস অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের সংশ্লিষ্টতাও রয়েছে বলে জানান তারা। অনেকে আবার বলেছেন তিতাস গ্যাস অফিসে লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

কালিয়াকৈর চান্দরা তিতাস গ্যাস বিতরন ও বিপনন কোম্পানি লিমিটেড চন্দ্রা জোনাল অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক মোহাম্মদ মামুনুর রহমান জানান, কালিয়াকৈর উপজেলার ভিতরে যে কয়টি লিকেজের স্পট রয়েছে তা চিহিৃত করা হয়েছে এবং মেরামতের জন্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। গ্যাস লাইনের এসব লিকেজ দ্রুত মেরামত করা হবে। অবৈধ গ্যাস লাইন সম্পর্কে আমার বিস্তারিত জানা নেই, তবে কোন অবৈধ গ্যাস সংযোগ থাকলে তা অভিযানের মাধ্যমে উচ্ছেদ করা হবে।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *