সংবাদ শিরোনাম :
«» টঙ্গীতে শীর্ষ মাদক সম্রাজ্ঞী ৫৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেফতার «» ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর দিয়াবাড়ি-আগারগাঁও মেট্রোরেল চালু হচেছ : পরিকল্পনামন্ত্রী «» খিলক্ষেত কুর্মিটোলা হাই স্কুল এন্ড কলেজের স্টোর রুমে আগুন নিয়ন্ত্রণে «» বেনাপোলে বিদ্যুৎ স্পর্শে যুবক নিহত «» মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের স্বীকৃতি চান তারা «» সমবায় সেক্টরের সংকট সমাধানে সহযোগিতা করা হবে : স্থানীয় সরকার ,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী «» রাজধানীতে ১৮ কোটি টাকা মূল্যের ৩৪ কেজি ওজনের কষ্টিপাথরের মূর্র্তিসহ দুই চোরাকারবারিকে গ্রেফতার «» রাজধানীতে দুই বাসের চাপায় এক ব্যক্তি নিহত : বাস চালক ও হেলপারসহ দুই জন আটক «» কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু’র উদ্যোগে দোয়া মাহফিল ও নৈশভোজ «» রূপগঞ্জ থেকে আনসার আল ইসলাম’র এক সদস্য গ্রেফতার : উগ্রবাদী বই, লিফলেট ও সিডি জব্দ

উত্তরায় থেকে অপহৃত ব্যবসায়ী মিহির রায় দক্ষিণখান থেকে উদ্ধার, দুই অপহরণকারী গ্রেফতার

এস,এম,মনির হোসেন জীবন :

রাজধানীর উত্তরা থেকে অপহৃত ব্যবসায়ী মিহির রায়কে অপহরনের ৬ দিন পর দক্ষিণখান থেকে উদ্ধার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা উত্তরা বিভাগ।
এঘটনার সাথে জড়িত থাকার দায়ে অপহরণকারী চক্রের দু’ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা হলেন, মো. মিরাজ (৩৫) ও বৃষ্টি (২১)।
এসময় আটককৃতদের কাছ থেকে অপহরণে ব্যবহৃত ছুরি, ৫৭টি ইলেক্ট্রিক্যাল ক্যাবল টাইস, স্ক্রু ড্রাইভার জব্দ করা হয়। এছাড়া ভুক্তভোগীর স্ত্রীর কাছ থেকে বিকাশে নেয়া ৪৯ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।
সোমবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে রাজধানীর দক্ষিণখান থানার চেয়ারম্যান পাড়ায় একটি বাড়ির তৃতীয় তলায় অভিযান চালিয়ে অপহৃত ব্যবসায়ী মিহির রায়কে উদ্ধার করা হয়।
আজ মঙ্গলবার দুপুর ৩টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার।
এসময় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা উত্তরা বিভাগের পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এ কে এম হাফিজ আক্তার প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদেরকে জানান, অপহৃত ব্যবসায়ী মিহির রায়ের উত্তরা পশ্চিম থানার ৯নং সেক্টরে ফুড স্টোর নামে একটি ফাস্ট ফুডের দোকান আছে। গত ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি দোকানে খাওয়া শেষে মিহির রায়ের প্রশংসা শুরু করেন। পরে তিনি জানান, তার এক বড় ভাইয়ের অনুষ্ঠানে ৮০ প্যাকেট খাবার অর্ডার করাবেন। এজন্য তাকে সঙ্গে করে নিয়ে যান।
গোয়েন্দা পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, পরদিন ১৪ জানুয়ারি ভিকটিমের স্ত্রীর মোবাইলে তার স্বামীর নম্বর থেকে কল আসে। তবে, কথা না বলেই তখন কল কেটে দেয়া হয়। কিছুক্ষণ পর অন্য একটি নম্বর থেকে মিহির রায়ের স্ত্রীকে কল দেয়া হয়। ফোনের ও পাশ থেকে মিহির রায়ের কণ্ঠ শুনতে পান তার স্ত্রী। মিহির রায় তার স্ত্রীকে জানান, তার হাত, পা ও চোখ বেঁধে রাখা হয়েছে। ২০ লক্ষ টাকা দিলে অপহরণকারীরা তাকে ছেড়ে দেবে। পরে মিহির রায়ের স্ত্রী অপহরণকারীদের দেয়া বিভিন্ন নম্বরে দুই লাখ ৯১ হাজার টাকা বিকাশ করেন। তবে, আরও টাকা দাবি করে অপহরণকারীরা। এঘটনায় গত ১৬ জানুয়ারি মিহির রায়ের স্ত্রী উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা দায়ের করেন।
অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হাফিজ আক্তার সাংবাদিকদেরকে জানান, মামলার পর অপহৃত ব্যবসায়ী মিহির রায়কে উদ্ধারে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে উত্তরা জোনাল টিম। অভিযানের অংশ হিসেবে সোমবার রাজধানীর দক্ষিণখানের চেয়ারম্যান পাড়ার হেজুর উদ্দিন রোডের একটি বাড়িতে অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশ। পরে ওই বাড়ির তৃতীয় তলার একটি ফ্লাট থেকে হাত-পা বাধাঁ অবস্থায় মিহির রায়কে উদ্ধার করা হয়। এসময় এক নারীসহ অপহরণকারী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।
তিনি আর বলেন, গ্রেফতার মিরাজ ও বৃষ্টি অপহরণ চক্রের সদস্য। তারা বিভিন্ন সময় অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, অপহরণের পর তারা ভিকটিমের অশ্লীল ছবি তুলে রাখে। ভিকটিম বা তার পরিবার যদি পুলিশ বা অন্য কারও কাছে অভিযোগ করে তবে, সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখানো হয়।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *