সংবাদ শিরোনাম :
«» টঙ্গীতে কৃষক লীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী উদ্ভধন «» কেরানীগঞ্জ আটি বাজার রাফিয়া হাসপাতালে নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট এর অভিযান «» যশোর নারাঙ্গালী সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নব নির্বাচিত সভাপতি আখতারুল কবির মিলন «» নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জে কারখানায় আগুন, লাশের মিছিলে স্বজনদের আহাজারি «» যশোরে গরিব, দুঃখী, অসহায়দের মাঝে ত্রান বিতরন «» গাজীপুরে ফ্রি অক্সিজেন সার্ভিস উদ্বোধন করলেন কামরুল আহসান রাসেল সরকার «» গাজীপুর চৌরাস্তায় লকডাউন বাস্তবায়নে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত «» মোদি-মমতার জন্য ২৬০০ কেজি আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী «» অপরাধীদের কঠোর বার্তা দিলেন নবাগত এ এস পি নবীনগর সার্কেল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া। «» গাজীপুর মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে অধ্যাপক শেখ ফজলে শামস পরশ এর জন্মদিন উদ্যাপন

নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জে কারখানায় আগুন, লাশের মিছিলে স্বজনদের আহাজারি

দেশান্তর ডেস্ক ঃ

শুক্রবার দুপুর ২টা। দুই প্লাটুন পুলিশ নিয়ে দু’টি গাড়ি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে। ঢামেক মর্গের অদূরে থামে পুলিশের গাড়িটি। গাড়ি থেকে নেমে কয়েকজন পুলিশ সদস্য দ্রুত মর্গের সামনে যান। বাকিরা যান যেখানে সুরতহাল রিপোর্ট লেখা হয়, সেই কক্ষে।

কিছুক্ষণের মধ্যেই সাইরেন বাজিয়ে মর্গের সামনে এসে দাঁড়ায় নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের পাঁচটি অ্যাম্বুলেন্স। একে একে অ্যাম্বুলেন্স নামানো হয় মরদেহগুলো। রাখা হয় ময়নাতদন্ত কক্ষের কাছেই ফাঁকা ঘরের মেঝেতে।

পরে এল আরও চারটি অ্যাম্বুলেন্স। সবগুলো থেকে একইভাবে মরদেহ নামিয়ে ভেতরে নিয়ে মেঝেতে রাখা হয়। একপর্য়ায়ে ময়নাতদন্ত কক্ষের মেঝে মরদেহে ভরে যায়। ফলে বাকি মরদেহগুলো ময়নাতদন্তের ঘরে নিয়ে টেবিলের ওপর রাখা হয়। কিন্তু তাতেও জায়গা হচ্ছিল না। ফলে ময়নাতদন্ত কক্ষের ফ্লোরের চারপাশে মরদেহ মোড়ানো ব্যাগগুলো রাখা হয়।

এসময় বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার কর্মীরা ব্যস্ত হয়ে মর্গে কতগুলো মরদেহ এল তা জানতে এদিক-সেদিক ছুটছেন। সারিবদ্ধ মরদেহ দেখে অস্ফুট স্বরে কেউ একজন বলে উঠলেন- উফ! কী বিভৎস!

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের হাশেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধার করা ৪৯ জন মরদেহ ঢামেকের মর্গে আনার পরের দৃশ্য ছিল ঠিক এমনই।

ঢামেক মর্গে উপস্থিত নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শামীম বেপারী জানান, মোট ৪৯টি মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে আনা হয়েছে। মরদেহগুলো পুড়ে গেছে। ফলে তাদের চেনা যাচ্ছে না। দাবিদার স্বজনদের ডিএনএ নমুনা নিয়ে মরদেহ শনাক্ত করা হবে। এরপর মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

তিনি জানান, ঘটনা তদন্তে সাত সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত শেষে সাতদিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা এবং আহতদের ১০ হাজার টাকা দেয়া হবে।

মরদেহ সংরক্ষণে মরচুয়ারি কুলার সংকট
ঢামেক মর্গে ৪৯টি মরদেহ রাখা হলেও এতগুলো মরদেহ সুষ্ঠুভাবে সংরক্ষণের জন্য মরচুয়ারি কুলার নেই। জানা গেছে, ঢামেক মর্গের মরচুয়ারিতে ২০টি মরদেহ রাখার ব্যবস্থা রয়েছে।

কিন্তু আগে থেকেই মরচুয়ারি কুলারে ১০টি মরদেহ রয়েছে। ফলে মরদেহগুলোর খুব বড়জোর অর্ধেক সংখ্যক মরচুয়ারি কুলারে রাখা যাবে। বাকিগুলো মেঝেতেই পড়ে থাকবে।

ঢামেক মর্গের অ্যাসিসটেন্ট সিকান্দার আলীর হিসাবে ৭-৮টি মরদেহ রাখার ব্যবস্থা আছে মরচুয়ারি কুলারে। তিনি বলেন, ‘এতগুলো মরদেহ শুধু ঢামেক মর্গে না পাঠিয়ে বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজের মর্গে ভাগ করে পাঠালে ভাল হতো।’

চেনার উপায় নেই, বেওয়ারিশ হিসেবে হতে পারে দাফন
রূপগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শুক্রবার ঢামেক মর্গে আনা ৪৯ জনের শরীর পুড়ে সম্পূর্ণ বিকৃত হয়ে গেছে। মরদেহ দেখে চেনার উপায় নেই। পরিধেয় পোশাক বা অলংকার দেখে স্বজনরা চিনতে পারলেও ডিএনএ ম্যাচিং-এর আগে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে না।

ঢামেক ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের একজন চিকিৎসক জানান, অতীতে রানা প্লাজা, তাজরীন গার্মেন্টস, নিমতলী ও চুড়িহাট্টার অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের মরদেহ বেওয়ারিশ হিসেবেই দাফন করা হয়। পরবর্তীতে ডিএনএ ম্যাচিং-এর মাধ্যমে কোন কবরটিতে তার স্বজনকে দাফন করা হয়েছে তা জানিয়ে দেয়া হয়।

শুক্রবার বিকেল থেকে দাবীদারদের নাম ও ঠিকানা সংগ্রহ করে ডিএনএর নমুনা হিসেবে রক্ত সংগ্রহ শুরু হয়। তবে ময়নাতদন্ত আজ হবে কি-না জানতে চাইলে মর্গ অ্যাসিসটেন্ট সিকান্দার আলী বলেন, ‘এখনো সুরতহাল রিপোর্ট হাতে পাইনি। ফলে আজ ময়নাতদন্ত হবে কি-না, তা বলতে পারছি না।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *